চাকরি কি চাইলেই পাওয়া যায়? – তাহলে কি করে পাওয়া যায়?

আপনি হয়তো অনেক শিক্ষিত কিন্তু চাকরি পাচ্ছেন না। আবার আপনার চারপাশের অনেককে দেখছে দেদারছে চাকরি করে যাচ্ছে। আপনার মনে মাঝে মাঝে হয়তোবা প্রশ্নের উদয় হয় যে, এরা চাকরি পেলটা কিভাবে। কিন্তু আপনি কোন উত্তরই খুজে পাননা এই প্রশ্নের। আবার কিছু কিছু মানুষকে দেখছে যে, তাদের হাতে এত বেশি চাকরি যে, দুইদিন পরপর নতুন নতুন কোম্পানিতে চাকরি করতেছে। জিজ্ঞেস করলে তারা বলতেছে যে, আগের অফিসটা ভালনা বা আগের অফিসের এটা বা ওটা ভাল ছিলনা তাই সেটা ছেড়ে নতুন কোম্পানিতে জয়েন করেছি। আপনি হয়তো তদেরকে দু একবার জিজ্ঞেসও করেছেন যে, আপনারা/ তোরা এত চাকরি পাস কোথায়? আমাকে ১ টা চাকরি দেনা বা দেননা।

কিন্তু জবাবে অধিকাংশের কাছ থেকে আপনি রেসপন্সটা পেয়েছেন সেটা হচ্ছে একটা মুচকি হাসি বা আপনার পিঠে দু একটা চাপর দিয়ে বলবে অনেকেই যে, চেস্টা চালিয়ে যাও পেয়ে যাবে। আরে চাকরি একটা ব্যপার নাকি, যখন পাবে তখন দেখবে যে, চাকরির যন্ত্রনায় পাগল হয়ে যাবে, এমন কথাও বলবে দু একজন।

কিন্তু এসব গালভরা আজব কথা সব আপনার মাথার উপর দিয়ে চলে যাবে, আপনি আরো ধাধার মধ্যে পড়ে যাবেন যে, এরা কি বলে এসব, কিভাবে এমন হতে পারে, কেন সবাই এত ইজিলি জব পাচ্ছে কিন্তু আপনি ১ টা জবের ধারেকাছেও যেতে পারছেন না। এসব চিন্তায় যখন আপনার পাগল হয়ে যাবার জোগার তখন দেখবেন যে, আপনার চারিদিকে শর্ষেফুল ছাড়া আর কিছু নেই। আপনার দুনিয়া অন্ধকার হয়ে আসবে আর আপনি আরো গভীর টেনশনে নিমগ্ন হয়ে যাবেন।

তাহলে তারা যেটা বলতেছে এবং তারা যে চাকরি করতেছে সেগুলো কিসের চাকরি? কিভাবে পাচ্ছে তারা সেসব চাকরি?

১ টা কথা মনের মধ্যে গেথে ফেলুন বা ভালকরে অনুধাবন করার চেস্টা করুন। সেটা হল যে, চাকরি কিন্তু ২ ধরনের, ঠিক আছে? এক ধরনের চাকরি হচ্ছে যেমন খুশি তেমন চাকরি আর আরেক ধরনের চাকরি হচ্ছে আপনার স্বপ্নের চাকরি বা আপনার মনের মত চাকরি বা যে চাকরি করার ইচ্ছে বা অভিলাশ আপনার মনের গহিতে সেই ছোট বেলা থেকে গেথে আছে। আর সাথে এই কথাটিও রাখবেন যে, মনের মত ১ টি চাকরি পাওয়া প্রায় অসম্ভব। যারা মনের মত চাকরি পায় তারা খুব ভাগ্যবান বা ভাগ্যবতী হয়ে থাকেন। একেবারে মনের মত জিনিস কখনো পাওয়া যায়না।

আপনার চাকরি পাচ্ছেননা তার মুল কারন হচ্ছে, আপনি এখনো আপনার মনের মত চাকরিটাই খুজে যাচ্ছেন। আর অন্যরা সবাই চাকরি পাচ্ছে এবং দেদারছে করে যাচ্ছে কারন অন্যরা অনেক আগেই বুঝে ফেলেছে যে, মনের মত জব পাওয়া যাবেনা তাই তারা যে চাকরিই পাচ্ছে সেটাই মন দিয়ে করে যাচ্ছে। সুতরাং, চাকরি পাওয়ার ব্যাপারে আপনার উচ্চভিলাসি মনটাকে পরিবর্তন করুন আগে। তাহলেই আপনি অন্যদের মত অসংখ্য চাকরি অফার পেতে থাকবেন।

একটা কথা মনে রাখবেন, ছোট কাজ করতে না পারলে বড় কাজ করার জন্য আপনি অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। আপনি যে পদেই কাজ করেন না কেন, মন দিয়ে করুন। তিক্ত আর উচ্চবিলাসি মন নিয়ে চাকরি হয়না, হয়নি এবং হবেওনা। খোজ নিয়ে দেখলে জানতে পারবেন, আপনার চারপাশের যারা সকাল বিকাল জব করতেছে এবং সন্ধ্যায় আপনার সাথে হেসে হেসে টিস্টলে বসে আলাপ করতেছে তারা খুব অল্প বেতনে এবং খুব মিনিমাম কোয়ালিটির কোন কল সেন্টার বা ডেটা এন্ট্রির অফিসে গরুখাটার মত পরিশ্রম করে কাজ করে তারপর দিনশেষে আপনার সাথে আড্ডা দিতেছে। সেইলোকটি আপনাকে কাজের খোজ দিচ্ছেনা কারন যেভাবেই হোক সে হয়তো বুঝতে পেরেছে যে, আপনি এইসব কাজ করতে পারবেন না। সো, মানুষকে বোঝাতে চেস্টা করুন যে, কাজ যাই হোক না কেন, অফিস ছোট বড় যাই হোক না কেন একটা না একটা কাজ আপনার চাই ই চাই। এটা যদি করতে পারেন তাহলে চাকরির বাজার বসে যাবে আপনার চারপাশে।

কিছু বলার থাকলে লিখতে পারেন। কমেন্টে কেউ মোবাইল নং লিখবেন না।
Published
Categorized as New

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *